বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯

বুয়েটে লাশ : আলোচনায় ফেসবুক স্ট্যাটাস

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে (২১) পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। রোববার দিনগত ভোর রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-ই-বাংলা হল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আবরার ফাহাদকে হত্যার ঘটনায় ইতোমধ্যে দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ। তারা হলেন- ফুয়াদ ও রাসেল। তারা দু’জনই বুয়েটের শিক্ষার্থী এবং শের-ই-বাংলা হলেই থাকেন। তাদের মধ্যে মেহেদী হাসান বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ফুয়াদ সহ-সভাপতি।

এদিকে গত শনিবার (৫ অক্টোবর) বিকেল ৫টা ৩২ মিনিটে ফেসবুকে সর্বশেষ স্ট্যাটাস দেন নিহত আবরার ফাহাদ। সেখানে তিনি সম্প্রতি ভারতের সাথে বাংলাদেশের বিভিন্ন চুক্তি নিয়ে সমালোচনা করেন। এর আগেও বিভিন্ন পোস্টে তিনি তিস্তা ও কাশ্মীর নিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সহপাঠীদের অভিযোগ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবরার লেখালেখি করতেন। এ কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহত আবরার ফাহাদের বেশ কিছু ফেসবুক পোস্টের স্ক্রিনশট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তার পোস্টের স্ক্রিনশট ফেসবুকে শেয়ার করে এ হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও জাড়িতদের দ্রুত বিচার দাবি করা হচ্ছে।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র (একাংশ) ইমরান এইচ সরকার তার ফেসবুক পেজে আবরার ফাহাদের মরদেহের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘রুম থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে মেরেই ফেললো! জীবন এই দেশে এত সস্তা? বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের খুনিদের বিচার চাই। দেশের সকল শিক্ষার্থী ও নাগরিকের প্রতি উদাত্ত আহ্বান, এই খুনের বিচারের দাবিতে সোচ্চার হোন।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর নিহত আবারের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আইনের শাসন না থাকায় ক্ষমতার দম্ভে যাচ্ছে তাই হচ্ছে!!!’

এদিকে আবরার ফাহাদকে হত্যার প্রতিবাদে ইতোমধ্যে রাস্তায় নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতৃত্বে দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাজু ভাস্কর্যের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন শিক্ষার্থীরা।

মিছিলে ছাত্র ফেডারেশন, ছাত্রফ্রন্টের নেতাকর্মী, ঢাবি ও বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছাড়াও ছাত্রদলের নেতাকর্মী অংশ নেন। মিছিলে তারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ছাত্রলীগ জড়িত উল্লেখ করে স্লোগান দেন। একই সঙ্গে মিছিলপূর্ব এক সমাবেশে আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

এদিকে আবরার ফাহাদ হত্যার বিষয়ে তদন্ত চলছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘তদন্তে যারাই অপরাধী সাব্যস্ত হবে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।’

সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের আরও বলেন, ‘অপরাধী যেই হোক, আইন নিজস্ব গতিতে চলবে। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে দেশ বিক্রিও তো বলে ফেলছে বিএনপি, তাই বলে বিএনপি নেতাদের কী আমরা মেরে ফেলব? কোনো আবেগ ও হুজুগে কারা (আবরার ফাহাদকে হত্যা) করেছে, তাদের অবশ্যই খুঁজে বের করতে হবে এবং সেই তদন্ত চলছে।’

আরো পড়ুন

ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ী বহিষ্কার অমিত সাহা

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইন সম্পাদক অমিত সাহাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার …