শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১
হোম » আন্তর্জাতিক » কুদস ফোর্স ইরানের সম্মান বৃদ্ধি করেছে: ইরানের সর্বোচ্চ নেতা

কুদস ফোর্স ইরানের সম্মান বৃদ্ধি করেছে: ইরানের সর্বোচ্চ নেতা

ইসলামি  ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী শ্রমিক ও শিক্ষক দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দিয়েছেন। স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যায় দেয়া ভাষণে তিনি বিদেশি নির্ভরতা কমিয়ে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার জন্য সরকারি কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, শত্রুরা যখন দেখবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ইরানের কোনো ক্ষতি করা যাচ্ছে না তখন তারা এই ধ্বংসাত্মক তৎপরতা বাদ দিতে বাধ্য হবে।

তিনি বলেন, ইরানের সব নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য শত্রু  ষড়যন্ত্র করেছে। শত্রুর পছন্দের প্রার্থী বিজয়ী হলে তারা নির্বাচনকে সুষ্ঠু বলেছে এবং এর বিপরীত হলে নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে বলে দাবি করেছে।

আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী পশ্চিম এশিয়ায় ইরানের স্বাধীনচেতা পররাষ্ট্রনীতি বাস্তবায়নের কাজে কুদস ফোর্সের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, শহীদ কাসেম সোলাইমানির নেতৃত্বাধীন কুদস ফোর্স ইরানের সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি করেছে। কাজেই তিনি এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টির প্রতি লক্ষ্য রেখে কথা বলার জন্য সব সরকারি কর্মকর্তার প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি ভাষণের শুরুতে পবিত্র রমজান মাসে আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)-এর শাহাদাতের কথা উল্লেখ করে এই মহান ইমামের কয়েকটি উন্নত গুণাবলী তুলে ধরে জনগণকে সেসব গুণ অর্জন করার আহ্বান জানান।

আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী এক্ষেত্রে শহীদ লে. জেনারেল কাসেম সোলাইমানির কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, যখন শহীদ সোলাইমানিকে বলা হতো- শত্রুরা তো আপনাকে শহীদ করার হুমকি দিচ্ছে। এর উত্তরে তিনি বলতেন- এটা তো আমার জন্য খুশির খবর। আমি দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা আকাশ-বাতাস, পাহাড়-পর্বত ও মরুভূমিতে শাহাদাত খুঁজে বেড়াই। সেটি যদি তারা এত সহজে আমাকে দিয়ে দেয় তাহলে সেটা হবে আমার জন্য পুরস্কার।

আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী ইরানের শিক্ষক দিবস উপলক্ষে বলেন, শহীদ আয়াতুল্লাহ মুতাহারির শাহাদাত দিবস উপলক্ষে আমাদের দেশে এ দিনটি পালন করা হয়। এ দিবসে শিক্ষকদের মনে রাখতে হবে জাতির ভবিষ্যত বিনির্মাণের গুরুত্বদায়িত্ব তাদের ওপর ন্যস্ত। তারা যেন আমাদের শিশু, কিশোর ও তরুণ সমাজকে যোগ্য ও ঈমানদার নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার আপ্রাণ চেষ্টা করেন।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা শ্রমিক দিবসের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, আল্লাহ তায়ালা ও বিশ্বনবী (সা.) শ্রমিকদের ভালোবাসেন। আল্লাহর নবী (সা.) শ্রমিকদের হাতে চুমু খেয়েছেন। শ্রমিক ভাইদের জন্য এর চেয়ে বড় মর্যাদা আর হতে পারে না। দেশ গঠনের প্রধান কাজটি তারাই করছেন। দেশের অর্থনীতি নির্ভর করছে অভ্যন্তরীণ প্রোডাকশনের ওপর এবং প্রোডাকশনের সে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বটি শ্রমিক ভাইয়েরা পালন করছেন।

তিনি পবিত্র রমজান মাসে সকল মুসলমানের নামাজ, রোজা ও কুরআন তেলাওয়াতসহ সব ইবাদত আল্লাহর দরবারে কবুল হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, আপনারা দোয়া কবুল হওয়ার ব্যাপারে মনে সংশয় রাখবেন না।  তাৎক্ষণিকভাবে দোয়াটি কবুল হলে সেটি আমাদের জন্য ভালো হবে না বলে হয়তো অনেক সময় সঙ্গে সঙ্গে দোয়া কবুল হওয়ার বিষয়টি আমরা বুঝতে পারি না

আরো পড়ুন

আবারও এক দফা লকডাউন বাড়ছে

দেশে করোনাভারাসের সংক্রমণ রোধে আগামী ১৬ মের পর থেকে । সেইসঙ্গে শতভাগ মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক …