মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০

একজন ডাক্তারের মর্মস্পর্শী বর্ণনা

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ডা. সাদিয়া আফরিন ত্রিনা ফেসবুকে লিখেছেন, ‘রোগীকে রিসিভ করা এবং তার ডেথ সার্টিফিকেট দেওয়া হয় মাত্র ২১/২২ ঘণ্টার ব্যবধানে। একজন ডাক্তার হয়ে এই কাজটি করা কতটা কঠিন, সেটা আমরাই জানি। আমরাও মানুষ। আমাদেরও মন খারাপ হয়। কিন্তু চোখে পানি আসা যাবে না। কারণ, আমরা যে ডাক্তার!’

চিকিৎসক ডা. সাদিয়া আফরিন ত্রিনার ফেসবুক পোস্টটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

‘আজ আমি আমার গত ২৪ ঘণ্টার অভিজ্ঞতা শেয়ার করব। আমাদের ঠাঁই কোথায় সেটা জানার জন্য!গত রােববার সকাল সাড়ে ৯টায় একজন রোগী ভর্তি হন পূর্ব নির্ধারিত তারিখে সিজার করার জন্য। রোগীর বয়স ৩৭ এবং এটি তার প্রথম বেবি হওয়ায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রেগন্যান্সি ছিল।

সকাল সাড়ে ১১টার পর তার অপারেশন হয়। মাতৃত্বকালীন অবস্থায় উনার ডায়বেটিক, হাঁপানি, এ ছাড়া জরায়ুতে ফাইব্রয়েডের সমস্যা আগে থেকেই ছিল। অপারেশনের পরও উনার ভাইটাইলস ভালো ছিল। বিকেলে লক্ষ্য করলাম ০২ স্যাট (অক্সিজেন স্যাচুরেশন) কমে যাচ্ছিল, ৯৪-৯৫%। তাই অক্সিজেন সাপোর্ট দিলাম। এ ছাড়া ইনহেলার, নেবুলাইজেশনও দিলাম। একটু উন্নতি হয় কিন্তু আবার কমে যায়। রাত ৮টার দিকে দেখছি ৯১-৯২%। এবার দিচ্ছি হাই ফ্লো-অক্সিজেন। তাতেও উন্নতি নেই। এর মধ্যে কনসালট্যান্টকে জানালাম এই পরিস্থিতি। উনি বললেন ভয় পেও না, ঠিক হয়ে যাবে।

কিন্তু আমি ভয় পাওয়ার মানুষ নই। সোহরাওয়ার্দী আর ঢাকা মেডিকেল এর মতো টারশিয়ারি লেভেলের হাসপাতালে ২০১৩ সাল থেকে কাজ করছি। খারাপ রোগীর চেহারা আমার একটু হলেও আন্দাজ আছে। ঢাকা মেডিকেলে আমি নিজে খারাপ রোগীর স্ট্রেচার টেনে রোগীকে ২য় তলা থেকে ৪র্থ তলায় আইসিইউতে শিফট করেছি। তাই আমি সচেতনভাবে রোগীর পরিবারকে রেফার লাগতে পারে বলে একটু আন্দাজও দিলাম। পোস্ট অপারেটিভে সিস্টারকে বললাম ল্যারিয়ানগোসকোপ (laryngoscope) এবং এন্ডোট্র্যাসিয়াল টিউব (endotracheal tube) যেন বের করে রাখে। একটা এক্সট্রা ইনহেলারও আনিয়ে রাখলাম। দুঃখজনক হলেও সত্য আমার কনসালট্যান্ট ফোনের ওপার থেকে আমাকে আশা দিতে চাইলেন রোগী ভালো হয়ে যাবে, এই বলে।

রাত পৌনে ১০টায় ৮ লিটার অক্সিজেনসহ এখন ৮৮-৮৯%। আমি বুঝে গেলাম আমার তাকে রেফার করা লাগবে। আমি কনসালট্যান্টকে ইনসিস্ট করলাম যে রেফার লাগবেই বেশি দেরি হওয়ার আগে। কারণ রেফারাল লেটার লেখা, অ্যাম্বুলেন্স ডাকা, রোগী শিফট, কোথায় যাবে ম্যানেজ করা এগুলোও সময়ের ব্যাপার।

পরে রাত ১টায় শিফট করলাম আহসানিয়ার আইসিইউতে। সেখানে ভর্তি করলেন। এরপর শুরু হলো আসল কাহিনী।

আহসানিয়া থেকে কিছুক্ষণ পরে বললেন, শ্বাসকষ্টের রোগী উনারা রাখবেন না। কুর্মিটোলাতে নেন। এরপর গেল কুর্মিটোলা। সেখানে অ্যাম্বুলেন্সেই স্ক্যান করে বললেন ইনি করােনা রােগী না। ঢাকা মেডিকেলে নিতে বলেন। ঢাকা মেডিকেলে বলল মুগদাতে নেন। উনি এখানে রাখার রোগী না। সঙ্গে খুব দুর্ব্যবহার! মুগদা বলল, এই রোগীতো গাইনী বিভাগের, আমাদের এখানে না। এর মাঝে ঢাকা মেডিকেলের ক্রিটিক্যাল কেয়ারে কাজ করা ফ্রেন্ডকে ফোন দিলাম। সাহায্য করার চেষ্টা করল।

তারপর অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার বলল, আপা এখন কি করব?

আমি বললাম, বাদ আছে সোহরাওয়ার্দী, ওখানে যান। আমি আমার এক বড় ভাইকে ফোন দিলাম তিনি ওখানকার করােনা ইস্যু নিয়ে ডাইরেক্টলি কাজ করছেন। জিজ্ঞাসা করলাম, রোগীতো করোনা ডিটেকটেড না। ভর্তি কি নিবে না? ভাই বললেন, এখানেও হবে না। কারণ, নন-কোভিড; হাসপাতালে সাসপেক্টেড কেস নিবে না। তাহলে কি করা যায়? রোগীরতো সাপোর্ট লাগবে। বলল, পাঠিয়ে দেখ।

ড্রাইভারকে বললাম, সোহরাওয়ার্দীতে যেতে। রওনা দিল। এর মাঝে আমি রোগীর খোঁজ নিচ্ছি। আমার কাছে থাকা অবস্থায় যাকে এক মুহূর্তের জন্য অক্সিজেন খুলতে দেয়নি, সে কিভাবে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে! তার শ্বাসকষ্টটা আমাকে খুব অস্থির করছিল। অস্থিরতাটা বোঝাতে পারবে না। শুধু ভাবছিলাম, একটু সাপোর্ট লাগবে, তাহলেই বোধহয় বেঁচে যাবে!

সোহরাওয়ার্দীর গেটে রোগী অক্সিজেন নেওয়া বন্ধ করল। ফেরত আসল আমার কাছেই। নিচে নেমে দাঁড়িয়ে আছি ডেথ ডিটেকশন এর সরঞ্জাম নিয়ে। স্টেথ, বিপি মেসিন, লাইট।

রোগী আমার শ্বাস নেয় না, হৃৎস্পন্দন নেই, পিউপিল ডাইলেটেড, ফিক্সড। অবশেষে সকাল ৬টায় তার মৃত্যু ঘোষণা করলাম।

একজন ডাক্তার হয়ে এই কাজটি করা কতটা কঠিন, সেটা আমরাই জানি। আমরাও মানুষ। আমাদেরও মন খারাপ হয়। কিন্তু চোখে পানি আসা যাবে না। কারণ, আমরা যে ডাক্তার!

আমার প্রশ্ন, কোভিড হাসপাতাল কোভিড-১৯ পজেটিভ ছাড়া নিবে না, নন-কোভিড হাসপাতালে সাসপেক্টেড কেস নিবে না, নন-কোভিড হাসপাতাল কোভিড নেগেটিভ ছাড়া নিবে না।

তাহলে রোগীরা যাবে কোথায়? এভাবেই কি হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরে অ্যাম্বুলেন্সে মারা যাবে?? বাস্তব চিত্র এটাই। এটাই হচ্ছে। কারণ কোনো সঠিক দিক-নির্দেশনা নেই, নেই কোনো জবাবদিহিতা।

রোগীকে রিসিভ করলাম আমি, ডেথ সার্টিফিকেটও দিলাম আমি। ব্যবধান ২১/২২ ঘণ্টা!

সঠিক দিক-নির্দেশনাটা কি কোনো ভাবে পাওয়া সম্ভব? একজন ডাক্তার হয়ে বড় নিরুপায় লাগল আজ নিজেকে!’

 

উৎসঃ   amadershomoy

আরো পড়ুন

সোহেল তাজ ও শাহ আলী ফরহাদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য: ফেবুতে আলোড়ন

বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের পুত্র ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ আজ সন্ধ্যা সাতটায় …