বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১
হোম » ফেসবুক থেকে » আমরা কি এমন দেশ চেয়েছিলাম?
আমরা কি এমন দেশ চেয়েছিলাম?

আমরা কি এমন দেশ চেয়েছিলাম?

যে নেতা জীবন যৌবন শেষ করলেন, একটি দেশ বানানোর স্বপ্ন দেখে। ২৩ বছর নির্যাতন ভোগ করলেন একটি জাতিকে স্বাধীনতা দেয়ার আশায়।

অথচ ইচ্ছা করলেই যিনি আজীবন পাকিস্তানের মন্ত্রীত্ব করে কাটিয়ে দিতে পারতেন। যিনি বার বার ফাঁসির মঞ্চে গেছেন কিন্তু মাথা নিচু করেননি। দেশকে মুক্ত করেই ছেড়েছেন।

সেই মহান নেতাকে ও পরিবারের সকলকে হত্যা করে তার প্রধান চারজন অনুসারীকে হত্যা করে, আইন করা হয়েছিল, এ সকল হত্যার বিচার কার্যক্রম শুরু করা যাবে না।

একুশ বছর নিজের স্বাধীন করা দেশের টিভি, রেডিও, সংবাদপত্রে যিনি নিষিদ্ধ ছিলেন। জনগণ ধারাবাহিকভাবে রক্ত ও জীবন দিয়ে যার অবিবেকী হত্যার বিচারের ব্যবস্থা করেছেন। সেই নেতা আবারও অপমানিত হবেন, মৃত্যুর এতো বছর পরেও নিজ দেশে? এখনও রাজাকারদের চিন্তা চেতনার ধারক ও বাহকদের এতো আক্রোশ তার প্রতি!

রাষ্ট্রের উন্নয়ন করতে গিয়ে দলের প্রতি যত্নশীল না থাকা এই অবস্থার অন্যতম কারণ। মৌলবাদীদের ধার্মিক ভেবে প্রশ্রয় দেওয়াও একটি কারণ। অযোগ্যদের দলীয় নেতৃত্বের বিভিন্ন পর্যায়ে এগিয়ে রাখাও অনেক বড় কারণ।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙা আজকের সরকারি দলের সকলের হৃদয়ে সমান ভাবে আঘাত করেনি বলেই আমার ধারনা। মিছিলের সব হাত এক না। এর সুযোগই নিয়েছে ওরা। হৃদয়ে যার বঙ্গবন্ধু নেই, ভাস্কর্য ভাঙলে তার কি আসে যায়। যাদের হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি অসীম শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে, তাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে আজ।

আমরা এমন দেশ চাইনি। আমরা চেয়েছিলাম সরকারি দল, বিরোধী দল, ছোট দল, মাঝারী দল, বড় দল সকলেই সম্মান করবে জাতির মহান স্থপতির প্রতি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কোন নাগরিক থাকবে না।

অথচ গত দশ বছরে দেশব্যাপী এমন ছাত্রলীগ, যুব ও ইত্যাদি লীগ বানিয়েছি আমরা, যাদের অনেকেই মৌলবাদীদের সুরে কথা বলে! এক সময় এদের হাতেই ভাস্কর্য ভাঙা হলেও আশ্চর্য হওয়ার কিছুই থাকবে না!

কারণ আমরা প্রজন্মের থেকে প্রজন্মান্তরে প্রগতির শিখা জ্বালাতে পারিনি। নবাগত ছাত্রদের হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু স্থাপন করতে পারিনি। তাদের শিখিয়েছি এমপি সাব জিন্দাবাদ, এমপি স্ত্রী জিন্দাবাদ, এমপি পুত্র জিন্দাবাদ!

আমরা চেয়েছিলাম এ দেশের মায়েরা শিশুদের বলবেন, তোমরা বঙ্গবন্ধুর মতো হয়ে বড় হও, তোমরা তার মতো অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন থাকো, তোমরা তার মতো মাথা উচু করে বাঁচতে শিখো।

সেই স্বপ্নের বাংলাদেশ হচ্ছে না! বরং উল্টা পথে হাটছে আমার রাষ্ট্র। মৌলবাদের চাষাবাদ হচ্ছে গ্রামে গঞ্জে। এ অবস্থা চলতে থাকলে এক সময় মৌলবাদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে সবাইকে।

লেখক: যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগ

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

আরো পড়ুন

প্রদীপ সম্পর্কিত বিস্ময়কর তথ্য : যা বললেন আসিফ নজরুল

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা ঘটনা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের …