রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা বিশ্ব সোচ্চার অথচ সরকার নতজানু: রিজভীর অভিযোগ আপডেট: 29-09-2017   
রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা বিশ্ব সোচ্চার হলেও সরকারের কূটনৈতিক ব্যর্থতায় সংকটের সমাধান হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, "কোনো সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত বা প্রস্তাব ছাড়াই শেষ হয়েছে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত বিতর্ক। এছাড়া, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফিরিয়ে নেবে কি না, সে বিষয়ে গতকালও জাতিসংঘের পক্ষ থেকে সংশয় প্রকাশ করা হয়েছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা বিশ্ব সোচ্চার। অথচ বর্তমান সরকারের ভূমিকা নতজানু।" তিনি বলেন, "আমরা বারবার জাতীয় ঐক্যের কথা বললেও এ ব্যাপারে সরকার একপক্ষ নীতি অবলম্বন করছে। এটা তো সন্ত্রাসীরা করে, এ সরকারের আচরণ সন্ত্রাসীদের মতো। তারা গণবিরোধী সরকার, তাদের অবহেলায় রোহিঙ্গারা পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে। লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করলেও জাতিসংঘসহ প্রতিবেশী প্রভাবশালী দেশগুলোকে পাশে নিতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ সরকার।" রিজভী আরও বলেন, "সরকার যে রোহিঙ্গাদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিল না, তার প্রমাণ হলো বিএনপির ত্রাণ তৎপরতায় বাধাদান। রোহিঙ্গা ইস্যুতে দেশে যে সংকট তৈরি হয়েছে, এমন সংকট ১৯৭৮ ও ১৯৯২-তে বিএনপি সফলতার সঙ্গে মোকাবিলা করেছিল। বর্তমান সংকটেও বিএনপির পক্ষ থেকে বারবার জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানানো হলেও তারা বিএনপির আহ্বানে সাড়া না দিয়ে একপক্ষ নীতি অবলম্বন করছে সরকার। অথচ সরকার এই জাতীয় সংকটের কোনো সুরাহা করতে পারছে না।" ‘শেখ হাসিনা বিশ্ব শান্তির অগ্রদূত, বিশ্ব মানবতার বাতিঘর’ - আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্য উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, তার এমন মন্তব্যে গোটা জাতি লজ্জা পেয়েছে। সারা দেশের মানুষের শান্তি নষ্ট করে অশান্তির বীজ বপন করে শান্তির দূত হওয়া যায় কিনা সে প্রশ্ন চারদিকে ঘুরপাক খাচ্ছে। ’৭২-৭৫ এ দেশে যখন দুর্ভিক্ষ চলছিল, তখন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পিতাও শান্তির জন্য জুলিও কুরি পুরস্কার পেয়েছিলেন। তখন মানুষ বলত ‘শেখ সাহেবের মাথায় জুলিও কুরি, আমরা সবাই ভাতে মরি’। রিজভী বলেন, “রক্তাক্ত দুঃশাসনের ওপর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও ওবায়দুল কাদের ঘোষিত ‘শান্তির দূত’ হিসেবে অভিহিত হয়েছেন। এখন বিনা ভোটের আওয়ামী সরকার রোহিঙ্গা ইস্যুর মধ্যে বিদ্যমান অমানবিক কর্তৃত্ববাদী প্রতিহিংসা ও প্রতিশোধের রাজনীতিকে আড়াল করার চেষ্টা চালালেও দেশের জনগণ কিছুই ভুলে যায়নি।” সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, আবদুস সালাম, দলটির আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া প্রমুখ।